রাজধানীর পানিতে কেঁচোর দেখা মিললেও সমস্যা নাই বলছেন ওয়াসার এমডি

দিনে পাঁচ থেকে ছয় বার ওয়াসার লাইন থেকে পানির সঙ্গে আসে কেঁচো। সেগুলো সরিয়ে নিত্যদিনের রান্না সারেন জুরাইনের বাসিন্দা রোজিনা বেগম। পরিবারের চার সদস্যের রান্না করতে প্রতিদিনই পোহাতে হচ্ছে চরম ভোগান্তি।

ওয়াসার পানির চাপ কম থাকার সঙ্গে এবার নতুন করে যুক্ত হয়েছে ময়লা ও দুর্গন্ধ। প্রতিদিনকার কাজে ঘটছে ব্যাঘাত, সেই সঙ্গে নিয়মিত এ পানি ব্যবহারে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা। এদিকে ওয়াসার পানিতে কোনো সমস্যাই নেই বলে দাবি করেছেন ওয়াসার এমডি।

এ সমস্যা থেকে সাময়িক মুক্তি পেতে ট্যাপের মুখে কাপড় বেঁধে নিয়েছেন রোজিনা বেগম। কিন্তু এতে কেঁচো সরাসরি বাইরে না এলেও দুর্গন্ধ তো আছে। আর কাপড় খুললেই আবার বেরিয়ে আসে কেঁচোর স্তূপ। ফলে কয়েক স্তরে ব্যবস্থা নিয়েও রেহাই মিলছে না দুর্গন্ধ আর কেঁচো থেকে।

ট্যাপের মুখ পরিষ্কার করতেই করতেই বলেন, ‘এখন তো অনেক কম কেঁচো এসেছে, একটু আগেও আমি পরিষ্কার করেছি। গতমাস থেকেই চরম ভোগান্তির মধ্য দিয়ে দিন পার করছি আমরা।’

এ তো গেল রোজিনা বেগমের কথা। একই এলাকার বাসিন্দা ইউসুফ দেওয়ানের অবস্থাও কোনো অংশে কম না। দুর্গন্ধ পানিতে মুসুল্লিদের অজু করতেও পড়তে হচ্ছে বিড়ম্বনায়। বারবার ট্যাংকি পরিস্কার করেও মিলছে না সুফল। তাই এ এলাকার প্রায় সবাই ট্যাপের মুখে কাপড় বেঁধে রেখেছেন পরিষ্কার পানি পেতে।

আরও পড়ুন: চুলায় নেই আগুন, ওয়াসার এমডি বললেন, ফুটিয়ে খান পানি

জুরাইন ৫৩ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা ইমা চৌধুরী। নয় বছরের ইমা বিকেল পাঁচটার আগ থেকেই বিশুদ্ধ পানি নেওয়ার জন্য পাম্পে অপেক্ষা করছে। এসময় তার সঙ্গে কথা হলে সে জানায়, প্রতিদিনই বাসার খাবার পানির জন্য জুরাইন কমিশনার রোডের বিশুদ্ধ খাবার পানি সরবরাহের পাম্প থেকে পানি সংগ্রহ করতে হয়। বাসায় লাইনের পানি দুর্গন্ধ ও ময়লাযুক্ত হওয়ায় পান করা যায় না।