আসন্ন ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে রাজধানীসহ সারা দেশে মাদক চোরা চালান ও মাদক ব্যবসায়ীদের তৎপরতা রোধকল্পে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি) এর ৯ দিন ব্যাপী মাদক বিরোধী বিশেষ অভিযানের শুরুতেই ঢাকা মেট্রো কার্যালয় (উত্তর), ঢাকা মেট্রো (দক্ষিণ), চাঁদপুর, টাঙ্গাইল ও ময়মনসিংহ “খ” সার্কেল, যশোর (ক-সার্কেল), পিরোজপুরে বিপুল পরিমাণ মাদক, ইয়াবা ও গাঁজা উদ্ধার।

(বুধবার) ২০ই এপ্রিল ২০২২, আসন্ন ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে রাজধানীসহ সারা দেশে মাদক চোরা চালান ও মাদক ব্যবসায়ীদের তৎপরতা রোধকল্পে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি) পরিচালক (অপারেশন ও গোয়েন্দা), কুসুম দেওয়ান, ঢাকা কর্তৃক ০৯ দিন ব্যাপী মাদক বিরোধী বিশেষ অভিযান ঘোষণা করা হয়। ৯ দিনব্যাপী বিশেষ অভিযানের শুরুতে রাজধানীর মতিঝিল এলাকা হতে একাদিক মামলার আসামী মাদক ব্যবসায়ী মোঃ মেহেদী হাসান (৪৫) কে ৩০ লক্ষ টাকা মূল্যের ১০,০০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ গ্রেফতার করে (ডিএনসি) ঢাকা মেট্রো কার্যালয় (উত্তর)। জানাযায় , ঢাকা মেট্রো কার্যালয় (উত্তর) এর উপ পরিচালক মোঃ রাশেদুজ্জামান এর নেতৃত্বে তেজগাঁও সার্কেলের সমন্বয়ে গঠিত টিম ২০/০৪/২০২২ ইং তারিখে ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় একাধিক মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা কালে আভিযানিক দল ক্রেতা সেজে মতিঝিল থানাধীন ফকিরাপুল ১৬৭/৪, ডিআইটি এক্সঃ রোডস্থ হোটেল রহমানিয়াতে অবস্থান নেয়। এক পর্যায়ে আসামী মোঃ মেহেদী হাসান (৪৫) উক্ত হোটেলে ২০০০ পিস ইয়াবা আভিযানিক দলের কাছে সরবরাহকালে হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়। আসামীকে নিবিঢ়ভাবে জিজ্ঞাসাবাদে তার বাসায় আরো বিপুল পরিমাণ ইয়াবা থাকার কথা স্বীকার করে। তার দেওয়া তথ্য ও দেখানো মতে রামপুরা থানাধীন ৬, মৌলভীরটেক, আসামীর ভাড়াকৃত বাসায় অভিযান চালিয়ে আরো ৮০০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। সর্বমোট ১০,০০০ (দশ হাজার) পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। সহকারী পরিচালক মেহেদী হাসান বলেন , প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত ব্যক্তি জানায় , দেশের সীমান্তবর্তী এলাকা টেকনাফ হতে নিষিদ্ধ মাদক এ্যামফিটামিনযুক্ত ইয়াবা ট্যাবলেট সংগ্রহ করে এবং নিয়ে এসে, ঢাকা মহানগরীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় ডিলার ও খুচরা মাদক ব্যবসায়ীদের নিকট বিক্রয় ও সরবরাহ করে আসছিলো এবং আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে এরকম আরো ইয়াবার চালান নিয়ে আসার পরিকল্পনা করছিলো। এই আসামীর বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে আরো একাদিক মামলা রয়েছে । আসামীর বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের তেজগাঁও সার্কেল পরিদর্শক মোঃ হেলাল উদ্দিন ভুঁইয়া বাদী হয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা দায়ের করেন বলে জানা যায়।

এদিকে, (বুধবার) ২০ই এপ্রিল মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, ঢাকা মেট্রো (দক্ষিণ) এর উপপরিচালক মোঃ মাসুদ হোসেন এর সার্বিক তত্তাবধানে, সহকারী পরিচালক সুব্রত শুভ এর দিক নির্দেশনায়, মতিঝিল সার্কেল পরিদর্শক মোঃ সুমনুর রহমান এর নেতৃত্বে একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে, যাত্রাবাড়ী থানাধীন পশ্চিম যাত্রাবাড়ী এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ১২ কেজি গাঁজা এবং একটি প্রিমিও প্রাইভেট কার সহ ১। মো রিয়াদ মিয়া ( ড্রাইভার) (২৫) ২। মোঃ শামীম মিয়া( ৩৫) এবং ৩৷ মো সাকিব (২১) মাদক ব্যবসায়ীদেরকে হাতেনাতে গ্রেফতার করে। আসামীর বিরুদ্ধে মতিঝিল সার্কেল পরিদর্শক মোঃ সুমনুর রহমান বাদী হয়ে সংশ্লিষ্ট থানায় একটি নিয়মিত মামলা দায়ের করেন বলে জানা যায়।

অন্যদিকে, (বুধবার) ২০ই এপ্রিল, ২০২২ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, জেলা কার্যালয়, চাঁদপুর এর সহকারী পরিচালক মোঃএমদাদুল ইসলাম মিঠুনের সার্বিক তত্বাবনধানে পরিদর্শক বাপন সেন, এর নেতৃত্বে গঠিত রেডিং টীম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চাঁদপুর সদর মডেল থানাধীন বাসস্ট্যান্ডস্থ ফয়সাল শপিং কমপ্লেক্স সংলগ্ন মোঃ ইসমাইল গাজী এর চায়ের দোকানের সামনে মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে আসামী আমীর হামজা (২০), পিতা- শোঃ আরজু মিয়া, মাতা- সাফিয়া বেগসকে ১০(দশ) কেজি গাঁজাসহ হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়। আসামীর বিরুদ্ধে পরিদর্শক বাপন সেন বাদী হয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে চাঁদপুর সদর মডেল থানায় একটি নিয়মিত মামলা দায়ের করেন জানা যায়।

এছাড়াও, (বুধবার) ২০ই এপ্রিল, ২০২২ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, জেলা কার্যালয়, টাঙ্গাইল কর্তৃক টাঙ্গাইল সদর থানাধীন বিশেষ বেতকা ও তারোটিয়া এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে দুই গ্রাম হেরোইন ও দুই কেজি গাজা সহ ০১। সাহানুর সরকার (৫৫),০২।সফিনুর সরকার(৫০), উভয় পিতা-মৃত তফিজ উদ্দিন,থানা ও জেলা টাঙ্গাইল ০৩। হায়দার আলী সহ তিনজন আসামিকে গ্রেফতার করে আসামীদের বিরুদ্ধে পরিদর্শক আহসান হাবিব ও উপপরিদর্শক মোঃ জিন্নাত আলী শেখ বাদী হয়ে টাঙ্গাইল সদর থানার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দুইটি নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয় বলে জানা যায়।
এছাড়াও ডিএনসি ময়মনসিংহ “খ” সার্কেল, যশোর (ক-সার্কেল), পিরোজপুর, মাদক বিরুধী অভিযান ও মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে নিয়মিত মামলা ও বিভিন্ন মেয়াদে সাজা ও অর্থদন্ড করে বলে জানা যায়।