ডিএনসি টেকনাফ বিশেষ জোন, কিশোরগঞ্জ, যশোর ও গাজীপুরে বিপুল পরিমান মাদক উদ্ধার

নির্লজ্জ বেহায়া মাদক কারবারীদের বিরুদ্ধে কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। আবারো ডিএনসি টেকনাফ বিশেষ জোন, কিশোরগঞ্জ, যশোর ও গাজীপুরে বিপুল পরিমান মাদক উদ্ধার।

(মঙ্গলবার) ১৯ জুলাই, ২০২২ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর টেকনাফ বিশেষ জোনের সহকারী পরিচালক সিরাজুল মোস্তফা এর নেতৃত্বে একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে, টেকনাফ সদরের  ৪ নং ওয়ার্ডস্হ আব্দুল্লাহ ও মহেশখালীয়াপাড়ার ইয়াছিন এর বসতঘর তল্লাশী করে ৫২ (বায়ান্ন) কেজি গাঁজা উদ্ধার করে। এসময় রেইডিং টিমের উপস্থিতি টের পেয়ে আসামীদ্বয় পালিয়ে যায়। এ বিষয়ে সহকারী পরিচালক মো: সিরাজুল মোস্তফা আমাদের প্রতিনিধিকে বলেন, ডিএনসির নিকট তথ্য আসে আসামীদ্বয় দীর্ঘদিন ধরে দেশের অভ্যান্তরে গাঁজা বিক্রি করে আসছিলো। টেকনাফ বিশেষ জোনের টিম বিশেষ গোয়েন্দা নজরদারিতে এই চালান উদ্ধার করতে সক্ষম হয়।  মাদকপাচারে  জড়িতদের খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে। আসামীদ্বয়ের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ অনুযায়ী মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

(মঙ্গলবার) ১৯ জুলাই, ২০২২ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, জেলা কার্যালয়, কিশোরগঞ্জ এর সহকারী পরিচালক মো: রফিকুল ইসলামের দিক নির্দেশনায়, ‘খ’ সার্কেল  পরিদর্শক সেন্টু রঞ্জন নাথ ও বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (এসি ল্যান্ড) মো: জুলহাস হোসেন সৌরভ এর নেতৃত্বে একটি টিম ভৈরব বাজার মেঘনা নদীর পাড়ে মো: জহির মিয়া (৪২) এর পান সিগারেট এর দোকানে মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে ৩৫০ (তিনশত পঞ্চাশ) পিস ইয়াবা ও মাদকবিক্রির নগদ অর্থ ১১,৩৭৫ (এগারো হাজার তিনশত পছাত্তর) টাকাসহ মো: জহির মিয়াকে হাতেনাতে গ্রেফতার করে। এবং মোসা: সোহেরা (৪৫)কে ১০১ (একশত এক) পিস ইয়বাসহ হাতেনাতে গ্রেফতার করে। আসামী মো: জহির মিয়ার বিরুদ্ধে  পরিদর্শক সেন্টু রঞ্জন নাথ বাদী হয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ অনুযায়ী একটি নিয়মিত মামলা দায়ের করেন। এবং আসামী মোসা: সোহেরাকে বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেড ৫০০ (পাঁচশত) টাকা অর্থদন্ড ও ৩ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন বলে জানা যায়।

(সোমবার) ১৮ জুলাই, ২০২২ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর জেলা কার্যালয় যশোর  এর উপপরিচালক হুমায়ুন কবির খন্দকার এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে, উপপরিদর্শক আশরাফুল হক ও আসিফুজ্জামান এর নেতৃত্বে একটি টিম যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানাধীন গাতিপাড়া মধ্যপাড়া এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে সবুজ (৩৪) কে ১২৬ (একশত ছাব্বিশ) পিস ইয়াবাসহ হাতেনাতে গ্রেফতার করে। আসামীর বিরুদ্ধে বেনাপোল পোর্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ অনুযায়ী মামলা দায়ের করা হয়।

অপর অভিযানে, মনিরামপুর ও কোতোয়ালীতে মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করে (০১) মোঃ কবির হোসেন (৩৬), পিতাঃ মৃত আব্দুল কাদের সরদার, (০২) আলমগীর হোসেন (৩৬), পিতাঃ মৃত শাহাদাৎ দফাদার, (০৩) মোঃ মনিরুল ইসলাম (৩২), পিতাঃ মৃত গফুর গাজী, (০৪) মেঃ সবুজ (৩০), পিতাঃ মৃত রাজা মিয়া, বেবুলাগ বাজারকে গ্রেফতার করে। আসামীদের মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়।

(মঙ্গলবার) ১৯ জুলাই, ২০২২ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি), জেলা কার্যালয়, গাজীপুরের উপপরিচালক মেহেদী হাসান এর সার্বিক তত্তাবধানে, উপপরিদর্শক মো: তাজউদ্দিন এর নেতৃত্বে একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে, মহানগরস্থ টঙ্গী পূর্ব থানাধীন এরশাদ নগর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে খালেদা বেগম (৩৫) কে ১৫০ (একশত পঞ্চাশ) পিস ইয়াবাসহ হাতেনাতে গ্রেফতার করে। আসামীর বিরুদ্ধে উপপরিদর্শক মো: তাজউদ্দিন বাদী হয়ে টঙ্গী পূর্ব থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ অনুযায়ী একটি নিয়মিত মামলা দায়ের করেন।