গ্যাসের তীব্র সংকটে রাজধানীবাসীর দুর্ভোগে যা জানাল পেট্রোবাংলা


হবিগঞ্জের বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্রের ক্ষতিগ্রস্ত কূপটি শনাক্তের চেষ্টা চলছে। আগামী দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে ধীরে ধীরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে বলে জানিয়েছেন পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান।
রোববার দুপুরে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপুর ফেসবুক পেজের একটি পোস্টে বলা হয়, বিবিয়ানা গ্যাস ক্ষেত্রের জরুরি মেরামত ও সংরক্ষণ কাজের জন্য গ্যাস সরবরাহে ঘাটতিজনিত কারণে কিছু কিছু বিদ্যুৎকেন্দ্রের উৎপাদনে বিঘ্ন ঘটছে। ফলে কোনো কোনো এলাকায় সাময়িকভাবে সরবরাহ ব্যাহত হতে পারে। এই অসুবিধার জন্য মন্ত্রণালয় আন্তরিক দুঃখ প্রকাশ করছে।

এর আগে রমজানের প্রথম দিনেই রোববার (৩ এপ্রিল) হঠাৎ গ্যাস সংকটে পড়েন রাজধানীবাসী। এতে দুর্ভোগ দেখা দেয়। রোববার দুপুরের পর থেকেই বিভিন্ন এলাকায় গ্যাসের চাপ কমে যায়। বিকেল থেকে অনেক এলাকায় চুলাই জ্বলেনি। এতে ইফতারি তৈরিতে অনেকে ভোগান্তিতে পড়েন। বাসায় ইফতারি তৈরি করতে না পেরে অনেকে দোকান থেকে কিনে এনে ইফতার করেন। রাজধানীর গ্রিনরোড, ইস্কাটন, বাংলামোটর, ৬০ ফিট, রামপুরা, ধানমন্ডি, মিরপুর, উত্তরা, ওয়ারিসহ বিভিন্ন এলাকার গ্রাহকরা জানিয়েছেন, রোববার বিকেল থেকেই তারা গ্যাস পাননি। কোথাও কোথায় অল্প চাপ থাকায় রান্না করা যায়নি।

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় অবস্থিত বিবিয়ানা গ্যাস ক্ষেত্রে মেরামত কাজ করার কারণে কূপ বন্ধ রয়েছে। এতে গ্যাসের সংকট দেখা দিয়েছে। গ্যাসের উৎপাদন কমে যাওয়ায় বিদ্যুৎ উৎপাদনেও বিঘ্ন ঘটছে।

পেট্রোবাংলা সূত্র জানায়, বিবিয়ানার ছয়টি কূপ থেকে গত রাতে গ্যাস উত্তোলনের সময় বালি উঠতে শুরু করে। এ কারণে বন্ধ করে দিতে হয় উৎপাদন। এতে রাতে প্রায় ৪৫০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের সংকট দেখা দেয়।

কূপ মেরামত কাজ চলছে জানিয়ে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গ্যাস সরবরাহ স্বাভাবিক হতে ১০ এপ্রিল পর্যন্ত সময় লেগে যেতে পারে