আবাসিক হোটেল ব্যবসার অন্তরালে জমজমাট মাদকের ব্যবসা


আবাসিক হোটেল ব্যবসার অন্তরালে জমজমাট মাদকের ব্যবসা । মাহে রমজানের পবিত্রতা রক্ষায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর বিশেষ গোয়েন্দা নজরদারিতে আবারো ডিএনসি ঢাকা মেট্রো কার্যালয় (উত্তর), পাবনা, ফেনী ও মুন্সিগঞ্জে বিপুল পরিমান মাদক উদ্ধার ।

০৯ এপ্রিল, ২০২২ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ  অধিদপ্তর,  ঢাকা মেট্রো কার্যালয় (উত্তর) ৩৪ লক্ষ টাকা মূল্যের ১১,৩০০ ( এগারো হাজার তিনশত) পিস ইয়াবাসহ ৫জনকে গ্রেফতার করে।

জানা যায়, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর  ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের অতিরিক্ত পরিচালক মোঃ জাফর উল্লাহ কাজল এর দিকনির্দেশনায় ,ঢাকা মেট্রো কার্যালয় (উত্তর) এর উপ-পরিচালক মোঃ রাশেদুজ্জামান এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে, সহকারী পরিচালক মেহেদী  হাসান এর নেতৃত্বে তেজগাঁও, রমনা ও উত্তরা সার্কেলের সমন্বয়ে গঠিত একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ৮ই এপ্রিল রাত থেকে ৯ই এপ্রিল সকাল পর্যন্ত শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান পরিচালনা করে রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা সংলগ্ন হোটেল নিউ পদ্মা ইন্টারন্যাশনাল (আবাসিক) এ অভিযানের সূত্রপাত ঘটে। ১।হোটেল মালিক রইস উদ্দিন রবি (৪৩) ও ২।হোটেল ম্যানেজার মোঃ আলম ওরফে রনি (৪০) কে ১৫০ (একশত পঞ্চাশ) পিস ইয়াবাসহ উক্ত হোটেল হতে গ্রেফতার করা হয়। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে খিলক্ষেত থানাধীন নিকুঞ্জ-২, টানপাড়া, রোড #৫ এর বাড়ী #৩৬/খ এ অভিযান পরিচালনা করে কুখ্যাত মাদক কারবারী  ৩। মোঃ হানিফ মোল্লা (৩৬)- গোপালগঞ্জকে ১০,০০০ (দশ হাজার) পিস ইয়াবাসহ তার নিজ বাসা হতে গ্রেফতার করা হয়। এছাড়াও উক্ত নেটওয়ার্কের আরো দুজন মহিলা মাদক কারবারী ৪। মোসাঃ শাহিদা বেগম (৪৫) কে কাফরুল থানা এলাকা হতে ১০০০ (এক হাজার) পিস ইয়াবা ৫। মোছাঃ রিমিয়ারা খাতুন (৩০)কে ভাটারা থানাধীন ছোলমাইদ ফেরাজীটোলার একটি বাড়ী হতে ১৫০(একশত পঞ্চাশ) পিস ইয়াবাসহ হাতেনাতে গ্রেফতার করে।

সর্বমোট ৫ জন আসামীকে ১১,৩০০ (এগারো হাজার তিনশত) পিস ইয়াবাসহ (আনুমানিক মূল্য ৩৪ লক্ষ্য টাকা) হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়। এ বিষয়ে সহকারী পরিচালক মেহেদী  হাসান বলেন, গ্রেফতারকৃত আসামীদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায়, দেশের সীমান্তবর্তী  এলাকা টেকনাফ হতে ইয়াবা ট্যাবলেট সংগ্রহ করে ঢাকা  মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় ডিলার ও খুচরা মাদক ব্যবসায়ীদের নিকট বিক্রয়  করে আসছিলো।  তারা অভিজাত বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা সংলগ্ন হোটেল পদ্মা ইন্টারন্যাশনাল(আবাসিক) এর মালিকসহ কর্মচারীদের সহযোগিতায় উক্ত হোটেলে বসেই ইয়াবা হাতবদল ও লেনদেন করতেন।  এছাড়াও জিজ্ঞাসাবাদে হোটেল মালিক কর্মচারীরা জানায় তারা হোটেলে আগত অতিথিদের নিকট সেবনের জন্য ইয়াবা বিক্রয় ও সরবরাহ করতো

আসামীদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ অনুযায়ী নিয়‌মিত মামলা দা‌য়ের করা হয় ।

এদিকে (শুক্রবার) ৮ই এপ্রিল, ২০২২ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর জেলা কার্যালয় পাবনা ক সার্কেল এর পরিদর্শক এর নেতৃত্বে একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে, রামানন্দ পুর মধ্যপাড়ায় অভিযান পরিচালনা  করে মোঃ আনসার আলী কে ৬ কেজি ৫০০ গ্রাম গাঁজাসহ হাতেনাতে গ্রেফতার করে। এসময় মোঃ রাজু রেইডিং টিমের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায় । অপর এক অভিযানে মোঃ মজিবর রহমানের বসত বাড়ি তল্লাশি করে ৫ কেজি ৫০০ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করা হয়। আসামীদের বিরুদ্ধে উপ-পরিদর্শক মোঃ জাকির হোসেন বাদী হয়ে পাবনা সদর থানায়  মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ অনুযায়ী  দুটি নিয়মিত মামলা দায়ের করেন।

অন্যদিকে (শুক্রবার) ৮ই এপ্রিল, ২০২২ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, জেলা কার্যালয়, ফেনীর সহকারী পরিচালক আব্দুল হামিদ এর সার্বিক তত্তাবধানে, পরিদর্শক মোঃ মোজাম্মেল হক এর নেতৃত্বে একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে,  ফেনী মডেল থানাধীন মহিপাল ফ্লাইওভার এর পূর্ব পার্শ্বে সিরাজ ড্রাগ হাউজ নামীয় দোকানের সামনে অভিযান পরিচালনা করে দ্বীন ইসলাম (২১)কে ৬ (ছয়) কেজি গাঁজাসহ হাতেনাতে গ্রেফতার করে। আসামীর বিরুদ্ধে ফেনী মডেল থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ অনুযায়ী একটি নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়।

এছাড়াও (শুক্রবার) ৮ই এপ্রিল, ২০২২ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, জেলা কার্যালয়, মুন্সীগঞ্জের সহকারী পরিচালক (অঃদাঃ) মোহাম্মদ সামছুল আলম এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে, পরিদশর্ক মোঃ সাইফুল ইসলাম ভূঁঞা এর নেতৃত্বে একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে, মুন্সীগঞ্জ থানাধীন নতুন গাঁও এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে জুয়েল পিতা-মোঃ রহম আলী দেওয়ান এর নিজ দখলীয় বসতঘর হতে জুয়েল (২৯)কে ১ (এক) কেজি গাঁজাসহ হাতেনাতে গ্রেফতার করে। আসামির বিরুদ্ধে উপ-পরিদর্শক মোহাম্মদ রাশিদুল ইসলাম বাদী হ‌য়ে মুন্সিগঞ্জ থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ অনুযায়ী  ১টি নিয়‌মিত মামলা দা‌য়ের করেন।